অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং কি এবং কিভাবে করবেন

ব্যবসার সাথে লিঙ্ক-আপ এবং অনলাইন ব্যবসার সাথে লিঙ্ক-বিল্ডিং দুটিই অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। লিঙ্ক-বিল্ডিং করলে একাধারে যেমন এসইও এডভান্টেজ পাওয়া যায় একইভাবে পাওয়া যায় রিফারেল ট্রাফিক। আবার লিঙ্ক-বিল্ডিং করার জন্য যেমন অনেক এজেন্সি রয়েছে তেমনি কিছু কিছু ট্রিক্স এপ্লাই করতে পারলে এজেন্সি ছাড়াও লিঙ্ক আর্ন করা যায়। আপনি যদি আপনার ব্যবসার প্রতি সিরিয়াস হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই লিঙ্ক এবং রেপুটেশন আর্নিং এর প্রতি মনযোগী হতে হবে। আমাদের মধ্যে যারা অনলাইন মার্কেটিং, এসইও অথবা এফিলিয়েট মার্কেটিং এর সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন তারা ইতিমধ্যেই লিঙ্ক-বিল্ডিং কিভাবে করতে হয় তা বেশ ভাল করেই যানেন। কিন্তু অনলাইনের মত অফলাইনেও আপনি লিঙ্ক-বিল্ডিং করতে পারবেন অথবা বলতে পারি লিঙ্ক আর্নিং এর ব্যাবস্থা করতে পারবেন। কিভাবে করবেন তা নিয়েই লিখছি আজকের এই পোস্ট।

অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং কি?

অফলাইনের যেই একটিভিটি গুলো আপনাকে বিভিন্ন সাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক পেতে সাহায্য করবে তাই অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং। অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং এর সবচাইতে বড় সুবিধা হচ্ছে এর কোয়ালিটি। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আপনি কোয়ালিটি সোর্স থেকে ব্যাকলিঙ্ক গুলো পাবেন শুধু তাই নয় ব্যাকলিঙ্ক গুলো হবে নেচারাল। তার মানে এই ব্যাকলিঙ্ক গুলো হবে গুগল ফ্রেন্ডলি এবং সাথে সাথে আপনি পর্যাপ্ত লিঙ্ক জুস আশা করতে পারেন। নিচে অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং কিভাবে করবেন তা নিয়ে কিছু আলোচনা করছি।

অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং কি এবং কিভাবে করবেন

লোকাল ইভেন্ট অর্গানাইজ করা

অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং এর সবচেয়ে কার্যকরি উপায় হচ্ছে ইভেন্ট অর্গানাইজ করা। একটা লোকাল ইভেন্ট আপনাকে দিতে পারে অসংখ্য কোয়ালিটি লিঙ্ক এবং পরিচিত। তবে শুধু লোকাল ইভেন্টের আয়োজন করলেই যে আপনি অসংখ্য লিঙ্ক পাবেন তা কিন্তু নয়। এর জন্য আপনাকে কিছু কৌশল প্রয়োগ করতে হবে।

  • লোকাল মিডিয়ার সাংবাদিকদের দাওয়াত করুন
  • আপনার নিশ (niche) ব্যবসার প্রথম সারির ব্লগারদের দাওয়াত করুন
  • আপনার কম্পেটিটরদের দাওয়াত করুন
  • কিছু সিনিয়র মেম্বারদের বক্তৃতা দিতে উতসাহিত করুন, অথবা তাদের বক্তৃতার ব্যাবস্থা করুন এবং তাদের বক্তৃতার একটা সামারাইজড ভার্শন আপনার ওয়েবসাইটে দিন এবং তাদের ট্যাগ করুন যা আপনাকে লিঙ্ক ফেরত পেতে সাহায্য করবে।
  • যাদের দাওয়াত দেয়া হয়েছিল এবং যারা আপনার ইভেন্টে অংশ গ্রহন করেছেন, তাদের একটা ডাটাবেজ তৈরি করুন এবং তাদের থেকে ফিডব্যাক অথবা মন্তব্য চান। (অবশ্যই প্রফেশনাল ভাবে চাইতে হবে)
  • যারা অংশগ্রহন করতে পারেন নি, তাদের সাথেও যোগাযোগ করুন এবং আপনি তাদের অনুপস্থিতি উপলব্ধি করেছেন তা যানান এবং তাদের থেকেও ফিডব্যাক চান।
  • ইভেন্টে কিছু নতুনত্ব আনুন যা আপনার ইভেন্টকে নিয়ে লিখার জন্য একটা ভাল বিষয় হতে পারে।

কোন ইভেন্ট স্পন্সর করা

ইভেন্ট অরগানাইজড করা যদি ঝামেলা মনে হয় অথবা সে পরিমান সময় এবং জনবল যদি না থাকে তাহলে আরেকটা ভাল উপায় হচ্ছে কোন ইভেন্টকে স্পন্সর করা। মোটামুটি সব ধরনের ইভেন্টেই একটা স্পন্সর পেইজ থাকে, এবং সেখান থেকে অনায়াসেই একটি ব্যাকলিঙ্ক পাবেন। শুধু তাই নয়, সেই ইভেন্ট নিয়ে যতগুলো লিখা হবে যত মিডিয়া থেকে সবগুলোতেই স্পন্সর হিসেবে আপনার কথা উল্যেখ করা হবে। অর্থাৎ অনেকগুলো অথরিটি সাইট থেকে আপনি ব্যাকলিঙ্ক পেতে পারেন। স্পন্সর হিসেবে আপনাকে ইভেন্টে  ইনভাইটও করা হবে এবং সেখানেও আপনি অনেকের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করার সুযোগ পাবেন, এবং সেখান থেকেও ব্যাকলিঙ্কপেতে পারেন।

বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ গ্রহন করা

শুধু কিছু ইভেন্ট আয়োজন করেই ব্যাকলিঙ্ক পাবেন তা কিন্তু নয়, বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহন করেও ব্যাকলিঙ্ক পেতে পারেন। প্রতিটি ইভেন্ট আপনার পরিচিতি বৃদ্ধি করতে নতুন নতুন মানুষের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করার সুযোগ দিবে । শুধু তাই নয়, আপনি প্রতিটি ইভেন্ট থেকে নতুন ব্যবসার অথবা ব্যবসাকে প্রচার করারও পর্যাপ্ত সুযোগ পাবেন, শুধু আপনাকে সেই সুযোগটি কাজে লাগাতে হবে।

ইন্টারভিউ দেয়া

এমন কিছু করুন যাতে আপনাকে এবং আপনার ইভেন্টকে নিয়ে লোকাল মিডিয়ার অথবা ব্লগারদের মধ্যে কৌতুহল সৃষ্টি হয়, এবং তারা আপনার ইন্টারভিউ নিতে আগ্রহী হন। এটি আপনার পরিচিতি অনেকগুন বাড়িয়ে দিবে। একটি ইন্টারভিউ শুধু আপনাকে সেই সাইট থেকেই ব্যাকলিঙ্ক দিবে তাও নয়, এটা আপনাকে আরো অনেক ব্যাকলিঙ্ক পেতে সাহায্য করবে।

এছাড়াও আরো অসংখ্য ছোট ছোট অফলাইন একটিভিটি আপনাকে লিঙ্ক বিল্ড করতে সহায়তা করতে পারে। অফলাইন লিঙ্ক বিল্ডিং নিয়ে ছোট ছোট প্রতিষ্ঠান গুলো মাথা না ঘামালেও কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান গুলো কিন্তু ঠিকই এই কৌশলটি ব্যবহার করে থাকে। তাই আপনিও চাইলে এখন থেকে অফলাইন লিঙ্ক বিল্ড নিয়ে ভাবতে পারেন।

Source

Leave a Reply