গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

গেস্ট ব্লগিং আসলে আবাধ সাফল্যের মহাসড়কে  নিজেকে ব্রান্ডিইং করে জনসাধারণের কাছে নিজেকে অনেকখানি লাইট করে তুলার মন্ত্র । গেস্ট ব্লগিং এর কন্টেন্ট উন্নত হলে অবাধ সম্ভাবনা রয়েছে ক্যারিয়ার ক্ষেত্রেও । হতে পারেন আপনিও একজন গ্রাফিস-ডিজাইনার, ওয়েব-ডেপলপার তবু কন্টেন্ট এমন এক ক্ষেত্র যা সর্ব ক্ষেত্রেই প্রয়োজনীয় । সবার থাকে আলাদা হবার অনেক মজাই আলাদা তাই না?? যা হয়ত আপনি না বুঝলেও ইকরাম ভাইয়া ঠিক ই বুঝে । তিনি আমাকে একদিন বলেছিলেন আজ আমি যেই সম্মান পাচ্ছি তা হয়ত বড় কোন চাকরি করলে কখনই পেতাম না । শুধু মাত্র আমার লিখা ২০-২৫ টি গেস্ট ব্লগিং পোস্টই আমাকে উচ্চ মানের সম্মান দিছে । ভাবুন তো তার নেই কোন সম্পদ, নেই কোন ক্ষমতাধারী পদ । তবু তিনি আমাদের সবচেয়ে কাছের মানুষ । আবার দেখুন আমাদের হুমায়ুন আহামেদ স্যার শুধু মাত্র তার লিখা গল্পের জন্য আমাদের মাঝে অতি পরিচিত এক মুখ হয়ে দাঁড়িয়েছে । কেন জানেন ??? কারন তিনি একজন লেখক । ভাবছেন তিনি পেরেছেন তাই বলে আমি কি করে পারব । শুনেন তিনিও কখনও ভাবে নি এতো কিছু হবেন । আপনাকে এতো কিছু হতে হবে না শুধু গেস্ট ব্লগিং এ নজর দিন । দেখবেন সাফল্য আপনার কাছে হাঁটি হাঁটি পা পা করে চলে আসেছে ।

ঠিক আছে, মহান শোনাচ্ছে, তাই না?

ওয়েল, এটা আসলে হয় ।

কিন্তু সত্যিই ব্যর্থতা একটি বিশাল আকৃতির আকাঙ্ক্ষাকে নিঃশেষ করে দেয় মুহুতেই । আমাদের সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতারই প্রতিছবি বেশি । তাই সময় আসেছে ব্যর্থতার অবসান করে সাফল্যের গণ্ডি তে পদ-চারণা করা । কি আপনি রাজি তো ?? তাহলে শুরু করুন নুতুন করে পথ চলা । আসুন গেস্ট ব্লগিং শক্তিকে কাজে লাগিয়ে নিজেকে ব্রান্ডিং করি ।

গেস্ট ব্লগিং নিয়ে আমি শুরু করেছিলাম পথ চলা । একটু সাফল্যের মুখ দেখেছি ।বাকি টুকুর জন্য আপনাদের দোয়া ও আল্লাহ্‌ তায়ালার অশেষ রহমত প্রয়োজন। আপনাদের দোয়া নিয়ে শুরু করেছিলাম গেস্ট ব্লগিং করার অন্তিম ও সর্ব শ্রেষ্ঠ গাইড লাইন তার বিশেষ ও শেষ পর্ব আজ প্রকাশিত হল । যারা আগের পর্ব এখন পড়েন নি তাঁরা আগে পড়ে নিন আগের গুলো ___

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন পর্ব – ০১

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন পর্ব – ০২

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

গেস্ট ব্লগিং কনটেন্ট এর রেজাল্ট এনালাইসিস করুনঃ

কনটেন্ট লিখতে পড়েন , গেস্ট ব্লগিং কি ভাবে করতে হয় তাও শিখলেন । কিন্তু তার রেজাল্ট কি হয় দেখবেন না। হম আমরা যাই করি সর্বদা দেখতে চাই আমরা কত টা সফল হয়েছি । প্রতিমুহূর্তে আপনার প্রয়োজন এনালাইসিস করা । পরিকল্পনা করতে সবাই জানে সপ্ন দেখতে সবাই ভালোবাসে । তবে আপনাকে সপ্ন পূরণ করতে হবে । শুধু সপ্ন দেখলেই হবে না।তা বাস্তবায়ন ও প্রয়োজন ।আপনার ফলাফল বিশ্লেষণ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ । এনালাসিস করার সময় ঠিক করুন ।কত জন পড়লো , কি কি কমেন্ট করল তা লক্ষ্য করুন । কনটেন্ট টি সকলের নজরে আসার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং (SMM) করুন ।অনেক কষ্টে লিখেছেন ভাই ।আর একটু কষ্ট করুন ।যত পারেন মার্কেটিং করুন ।তাতে আপনার ভিউ বাড়বে ।যত ভিউ তত সুনজর এ পড়বেন ।যারা গুগল এনালিটিক্স সম্পর্কে জানেন তাঁরা বুঝবেন ভিউ বেশি হওয়াটা কততা জরুরী । একটা কথা মাথায় রাখবেন কনটেন্ট ভাল হলে সঙ্গে ডিজিটাল মার্কেটিং করতে পারলে ভিউ ৩ গুন বেড়ে যাবে । এখন প্রশ্ন আস্তে পারে কত দিন করব? যত দিন পারেন করবেন । মাঝে মাঝে পুরনো লিখা গুলো ও শেয়ার করবেন । সুন্দর করে ছোট একটি সারমর্ম লিখবেন আর লিঙ্ক দিয়ে মার্কেটিং করবেন । বাস! ফলাফল কী দ্বারায় তা আপনি নিজেও বুঝতে পারবেন ।

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

এখন ও প্রশ্ন থাকে কেন রেজাল্ট এনালাইসিস করবো । উত্তর একটাই Google এনালিটিক্স মধ্যে উন্নত অংশ হিসেবে নিজের কনটেন্ট স্থাপন করা । এছাড়া আরও কিছু বিষয় থাকে তা হল আপনার কনটেন্ট টি সঠিক জায়গায় পোস্ট হল কিনা মানে আপনি যেই সাইট এ পোস্ট করছেন তা ঐ সাইট এ পাবলিশ করার অনুমুতি আছে কিনা , ঐ ধরনের টপিক আদ্য আগে পোস্ট হয়েছে কিনা । বুঝেছেন । একটা উদাহরণ দেই কোন সাইট এ সেক্স বিষয়ক পোস্ট করা হয় মানে পর্ণ সাইট । আপনি যদি ঐ সাইট এ যায় ফ্রীলান্সিং নিয়ে পোস্ট দিন কাজে দিবে । কথা টি উলটা করে বললাম । কারণ আপনি যদি ফ্রীলান্সিং সাইট এ সেক্স বিষয়ক পোস্ট দেন বান খাবেন মাস্ট । তবে সেক্স বিষয়ক সাইট এ পোস্ট দিলে বান হওয়ার সম্ভবনা নাই বেশি । তবে আপনার ফলাফল জিরো । কেউ আমারে খারাপ ভাবিয়েন না ।এই উদাহরণ না দিলে অনেকে বুঝত না । আসলে আমরা খারাপ তাই একটু বেশি বুঝি ।

মোস্ট ইম্পরট্যান্ট কথা কন্টেন্ট মাসে প্রয়োজন এ একবার লিখুন কিন্তু এনালাইসিস টি প্রতিদিন করুন । এতে সাফল্য আপনার পিছু পিছু ধরা দিবে ।

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

গেস্ট ব্লগিংএ ব্যর্থতা না হতে চাইলে য়ে ভুল গুলো বিশেষভাবে সংশোধন করবেনঃ

গেস্ট ব্লগিং এ ব্যর্থতা কথা টি বেমানান লাগে আমার কাছে । মানুষ পরিশ্রম না করেই সাফল্য পেতে চায় । তাহলে ব্যর্থতা আসবে এটাই স্বাভাবিক । সকল ক্ষেত্রেই ব্যর্থতা আছে । তার প্রতিকার আমাদের ই তৈরি করতে হবে । মার্কেটপ্লেসগুলোতে কন্টেন্ট সম্পর্কিত কাজ পাওয়া যায় প্রচুর পরিমানে । তাই ভুল গুলো বাদ দিতে হবে । যে ভুল গুলোতে ব্যর্থতা অনিবার্য তা প্রতিকার করতে হবে ।

পাঠক কে টাইটেল দ্বারা চমকিত করতে না পারা – পাঠক অলয়েজ আগে দেখবে টাইটেল কি? টাইটেল এই যদি আকর্ষণীয় ভাব না থাকে তবে অবশ্যই তা পড়তে চাবে না । আকর্ষণীয় টাইটেল   শ্রোতাকে বিষয়টি পড়তে আগ্রহর সৃষ্টি করাবে। টাইটেল এ এমন কিছু লিখুন যেন যাতে শ্রোতার ব্রেইন তাঁকে আদেশ করে সম্পূর্ণ কন্টেন্ট টি পড়তে ।

 

নির্লজ্জভাবে অন্যের লিখা নিজের নামে চালানো – অন্যের লেখা নিজের নামে চালিয়ে দেয়া তথা চুরি করার একটা প্রবণতা অনেকের মাঝেই আছে। মূল লেখকের নাম অপ্রকাশিত রেখে ভালো কোনো পোস্ট নিজের বলে চালিয়ে বাহবা কুড়ানোটা একমাত্র নির্লজ্জ লোকের পক্ষেই সম্ভব। অন্যের লিখা গুলো নিজের নামে চালাবেন । কতদিন চালাবেন বলুনতো ।এক্ষেত্রে কি আপনি সাফল্য পাবেন ? অবশ্যই নয় তাই নিজের মেধা কে কাজে লাগাতে শিখুন ।
নির্লজ্জভাবে অন্যের টাইটেল চুরি করে চালানো – একই টাইটেল ব্যাবহার করা যাবে না । কেন না গুগলে একই টাইটেল কয়েকবার আসলে তা থেকে ভাল ফলাফল পাওয়া যাবে না ।টাইটেল টিও যেন ইউনিক হয় ।এছারাও টাইটেল যেন আকর্ষণীও হয় সে দিক লক্ষ রাখতে হবে
যতটা সম্ভবতথ্য বহুল কন্টেন্ট না লিখা – আগের পোস্ট এই বলেছি কন্টেন্ট ঠিক রাখুন । কন্টেন্ট দ্বারা মন জয় করুন । কন্টেন্ট আপনাকে উচ্চ মর্যাদা দিবে । সর্ব প্রথম কথা এবং শেষ কথা কন্টেন্ট ঠিক করুন । উন্নত করুন । তবু বিস্থারিত জানতে এই ২ টি আর্টিকেল পড়ে নিবেন। তবে পরিষ্কার ধারনা পাবেন ।

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন পর্ব – ০১

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন পর্ব – ০২

আরনিং বিষয়ক বিশেষ টিপস যা শুধু মাত্র গেস্ট ব্লগিং দ্বারা সম্ভবঃ

অনলাইনে ক্যারিয়ার গঠন করার অন্যতম সম্ভাবনাময় এবং প্রসারময় পথ গুলোর একটিহল লেখালেখি যা Article Writing বা কন্টেন্ট রাইটিং হিসাবে পরিচিত। যেখানেআপনি কোন বিষয়ের উপর লিখে কাজ করতে পারেন। ওয়েবে কোন বিষয় কে সামনে রেখেশুরু হয় আর্টিকেল লেখা। গেস্ট ব্লগিং করে একটা পর্যায় আয় করতে পারেন তাছাড়া ওডেস্ক ও ইল্যান্সেরমত নাম করা ফ্রিল্যান্স মার্কেট প্লেস গুলোতে রয়েছে হাজার হাজার প্রজেক্ট।শুধু মাত্র ইল্যান্সে গত ৩০ দিনে লেখক চেয়ে জব পোস্ট হয়েছে ৯০,২৭৭ টি।এমনকি রাইটিংকে নিয়ে গড়ে উঠছে মার্কেটপ্লেসের সংখ্যাও নিছক কম নয়। যেমনঃ

  • WriterAccess
  • TextBroaker
  • iWriter

আয় করার সুযোগ আছে নিজের ব্লগিং সাইটে ইনফরমেটিভ ব্লগ এবং অ্যাফিলিয়েটসাইটে প্রডাক্ট রিভিউ লিখে। বাংলাদেশে এমন অনেক ফ্রিল্যান্স লেখক আছেন যারাঘন্টায় ১০-১২ থেকে ৩০ ডলার আয় করে থাকেন।

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

কি ভাবে আয় করে তা জানলেন এখন কেমনে সহজে আয় করবেন তা বলি ।যখন আপনি কার কাছে কাজ নিতে চাবেন বায়ার আপনার কাছে প্রটোফলিও চাবে । আপনার লিখা লিঙ্ক গুলো দিয়ে দেন । এতে করে জব বলুন আর ফ্রীলান্সিং বলুন দুটায়ই লাভ ।যখন জব দাতা দেখবে আপনি অনলাইন জগতে একজন সফল বাক্তি । কাজ পারেন তার প্রমান আপনি দেখিয়েছেন গেস্ট ব্লগ গুলোতে । এখন আসি বায়ার বা জব দাতা কেন আপনাকে সরাসরি অফার করবে । আপনার মত তারাও ব্লগ পড়ে । আপনার লিখা যদি প্রতিনিয়ত পড়ে আপনি তার পরিচিত হলেন এ ভাবে । তার কোম্পানি তে বড় জবের অফার আছে সরাসরি আপনাকে জানাবে কারণ তিনি জানেন আপনি ট্যালেন্ট মানুষ । আপনাকে দিলে আপনি পারবেন করতে ।

আমি সব সময় একটি কথা বলি টাকা র পিছনে ছুটিয়েন না ।ভাল কাজ শিখুন ।আর একটি কথা কিছু প্রতিষ্ঠান আপনাকে নানা ভাবে প্রলেভন দেখাবে ৩ মাস ট্রেনিং করুন মাসে ৩০/৪০ হাজার টাকা ইনকাম করুন । এগুলো দেখে প্রতারিত হবেন না । পড়াশুনা বা জব ছেড়ে এগুলো কইরেন না কেউ ।পার্ট টাইম হিসেবে নিতে পারেন ।

গেস্ট ব্লগিং করার জনপ্রিয় পদ্ধতি ও সর্বশ্রেষ্ঠ গাইডলাইন শেষ পর্ব – ০৩

পড়াশুনা বা জব ঠিক রেখে তারপর এগুলো তে আসেন । আগে এগুলো তে সাফল্য পাবেন তারপর জব বাদ দিয়েন আগে নয় । আর যারা স্টুডেন্ট তাঁরা আগে পড়াশুনাতে মনোযোগ দিন । আয় করার চিন্তা মাথা থেকে দূর করে এক্সপার্ট হবার চিন্তা করুন ।নিজের জন্য কাজ শিখুন দক্ষ হয়ে উঠুন তবে পড়াশুনা বাদ দিয়ে নয় ।

চটকদার বিজ্ঞাপন দেখেই লাফানর দরকার নাই ।অকে । ভাল জায়গাতে প্রশিক্ষণ নিন ।উন্নত দেশ গড়ুন । ধোঁকাবাজি – দুর্নীতি প্রত্যাহার করুন ।

লেখকঃ নাসরিন আক্তার

One comment

  1. avatar
    মোঃ শাওন

    আলহামদুলিল্লাহ
    পোস্টের শেষ উপদেশটা আমাদের বাঙ্গালীদের জন্য মেনে চলতা খুব দরকার।সত্যি বলতে আমি নিজেই এরকম একটা সীদ্বান্ত নিতে যাচ্ছিলাম।কিন্তু সামগ্রিক চিন্তা করে পড়াশোনাকে/জবকে গুরত্ব দিতে হবে।আপাদত,প্রাথমিক অবস্থায় এটাকে অপশনাল রাখা যায়।
    আসসালামু আলাইকুম-
    আল্লাহ হাফেজ

Leave a Reply