গ্রাফিক্স ডিজাইন টিউটোরিয়াল – কালার এবং টাইপোগ্রাফি কনসেপ্ট

যেকোন ডিজাইন এর ক্ষেত্রে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পার্ট হল টাইপোগ্রাফি আর কালার কনসেপ্ট… .
বিজনেস কার্ড হোক কিংবা পিএসডি অথবা ওয়েব টেম্পলেট…আমরা আবার আরেকটু গবেষণা করি এসব নিয়ে…

কালার কম্বিনেশন

গ্রাফিক্স-ডিজাইন-টিউটোরিয়াল-কালার-এবং-টাইপোগ্রাফি-কনসেপ্ট
Designer Drawing

০১) ডিজাইন করার সময় আমরা দুটোকালার অলটাইম সিলেকশন এ রাখবো। সাদা আর কালো। .


০২) এই সাদা কালো, রঙদুটোকেই ডিজাইন এবং চোখের সহ্য ক্ষমতা আই মিন চোখের আরামের উপর ভিত্তি করেএদের গারত্ব কমিয়ে বাড়িয়ে ব্যবহার করে যেতে পারে। লাইক : সলিড কালো এরকালার কোড #000, আবার কালো এর অন্য শেড এর কোড #232323। প্রয়োজনমত তাপ্রয়োগ করা লাগবে।


০৩) সাথে একটি বেইজ কালার মানে প্রধান কালার রাখালাগবে যা শুধু প্রধান প্রধান ক্ষেত্রগুলোকে ফুটিয়ে তুলবে।


০৪) এই প্রধানকালারের উপর ডিপেন্ড করে আমরা আইকন কালার কিংবা সেকশন কালার কিংবা ফন্টকালার ডিজাইনের সুবিধার্থে ব্যবহার করব।


০৫) প্রায়ই দেখা যায় টাইটেল ফন্টকালার একটু বোল্ড আই মিন ডার্ক কালার আর প্যারাগ্রাফ কালার টা আরেকটুহাল্কা কালার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।


০৬) ব্যাকগ্রাউন্ড কালার দেয়ার পরখেয়াল রাখা লাগবে আপনার ফন্ট এর কালার টা তার উপর ম্যাচ করে কিনা। . লাইকব্যাকগ্রাউন্ড কালার “সাদা” আপনি ফন্ট কালার ও সাদা কিংব তার কাছাকাছুদিলেন তাতে বুঝাই যাচ্ছেনা কিংবা “লাল” কালার ব্যাকগ্রাউন্ড এর মধ্যে দিলেন ” নীল” কালার ফন্ট তাতে লেখাগুলো পড়তে কষ্ট হয় আর বুঝাও যায়না। এরকম কিছুএড়িয়ে যাবার চেষ্টা করতে হবে।


০৭) কালারের ব্যাপারগুলো বুঝার জন্য অনেকডিজাইন দেখা বাঞ্ছনীয়।

—————————————————————————————————————————

টাইপোগ্রাফি

গ্রাফিক্স-ডিজাইন-টিউটোরিয়াল-কালার-এবং-টাইপোগ্রাফি-কনসেপ্ট
গ্রাফিক্স ডিজাইন টিউটোরিয়াল – কালার এবং টাইপোগ্রাফি কনসেপ্ট

টাইপোগ্রাফি হচ্ছে খাশ বাংলায় ডিজাইনের ভাষা। ফন্ট চুজিং থেকেশুরু করে তার লাইনের মাঝে গ্যাপ রাখা, ডিজাইনের প্রয়োজন অনুযায়ী ওয়ার্ডগুলোর মাঝেও গ্যাপ রাখা এই পার্ট এর মধ্যেই পড়ে। . একটি ডিজাইন অনেকাংশেইসঠিক ফন্ট চুজিং এর উপর নির্ভর করে।

০১) আপনার ডিজাইনের সাথে মিল রেখে ফন্টসিলেকশন করতে হবে। যেমন : বেশিরভাগ রেস্টুরেন্ট ডিজাইন এ দেখবেন একটা ফন্টএকটু হ্যান্ড রাইটিং টাইপ নিয়ে বেশি ব্যবহার করে থাকে।


০২) মাত্রারিক্তফন্ট ব্যবহার না করাই ভালো। প্রয়োজন অনুযায়ী একটা টাইটেল আর প্যারাগ্রাফ এরজন্য একটি ফন্ট, টোটাল ২টি ফন্ট ব্যবহার করা যেতে পারে। তারপরো চাইলে আরো১টি নেয়া যায়। তবে এর বেশি ফন্ট ব্যবহার না করাই মনে হয় ভালো।

– একটি ফন্টের অনেকগুলি স্টাইল থাকে যেমন normal, light, semi-bold, bold ইত্যাদি। উদাহরণ –https://www.google.com/fonts…এরকম একটি ফন্ট ব্যবহার করেই ভাল ডিজাইন করা সম্ভব। দুটি ফন্ট হলে বৈচিত্রআসে, ভাল লাগে। প্রথম প্রথম দুটি ফন্টের/টাইপফেসেরভাল কম্বিনেশন খুজতেকাজে লাগতে পারেhttp://fontpair.co/কিংবাhttp://www.typegenius.com/

কোন ওয়েবপেজ-এ কি কি ফন্ট ব্যবহার করা হয়েছে জানতে চাইলে গুগল ক্রোম-এhttps://chrome.google.com/…/jabopobgcpjmedljpbcaablpmlm…ব্যবহার করা যেতে পারে আর কোনগ্রাফিক ডিজাইন-এhttps://www.myfonts.com/WhatTheFont/


০৩) ট্রাইকরবেন গুগোল ফন্ট কিংবা ফ্রি ফন্ট যেগুলো সহজেই কমার্শিয়াল কাজে ব্যবহারকরা যায় তা ব্যবহার করতে। প্রয়োজনে প্রিমিয়াম ফন্ট ও ব্যবহার করতে পারেন।তবে ফন্টগুলোর যেসব স্থানে পাওয়া যাবে তার লিং দিয়ে দিলে ভালো তাই সেটানোটপ্যাড এ সংরক্ষণ করতে পারেন।


০৪) ফন্ট টা যাতে সহজে পড়া যায় সেরকমহওয়া ভালো।


০৫) আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ পার্ট হচ্ছে, লাইন-হাইট। একটা লাইনেরথেকে তার নিচের লাইনের মাঝে দুরত্বই লাইন-হাইট। আপনি ২টা লাইন লিখলেন, কিন্তু উপর নিচে গ্যাপ না রাখলে তা একটার সাথে আরেকটা লেগে যেতে পারে।সেজন্য এই গ্যাপ টা রাখা উচিত।


০৬) টাইটেল কালার, হেডিং ফন্ট সাইজ অনুযায়ীলাইন-হাইট দেয়া যায় আবার নিজেও ডিফাইন করে দিতে পারেন। . ফন্ট সাইজ গুলোআলাদা ভাবে একসাথে ডিফাইন এবং কালার গুলো একসাথে ঠিক করে নিলে তাতে সময়বাচে।


০৭) ডিজাইনের প্রয়োজনে একটা ওয়ার্ড থেকেও আরেকটা ওয়ার্ড এর দুরত্বঠিক করে দেয়া যেতে পারে। সেটা হল: Word spacing or letter spacing.


০৮)টাইটেল হওয়া চাই অর্থবোধক আর প্যারাগ্রাফ টেক্সট খুব বেশি না হওয়াই ভালো।

– এগুলো কেন এবিষয়ে সাহায্য করবে এই আর্টিকেলটিhttps://www.nngroup.com/articles/how-users-read-on-the-web/


০৯)#অন্যতম একটা বিষয়, সেকশন টু সেকশন গ্যাপ সমান রাখা চাই। এবং টাইটেল হেডিং, প্যারাগ্রাপ এবং বাটন আইকন এসবের মাঝেও একটা নির্দিষ্ট পরিমান গ্যাপ রাখাচাই যাতে হিজিবিজি না লাগে।

অনেক কিছুই হয়ত বাদ পড়ে গেছে, অনেক কিছুই হয়তভালো মত বলে হয়ে উঠেনি। আশা করব এগুলো কিছু না কিছু কাজে লাগবে।

Leave a Reply